আজ পহেলা ফাল্গুন ঋতুরাজ বসন্ত

0
222

কামরুল হাসান জুলহাস:: ঝরা পাতা গ্রামে থাকলেও নেই শহরে। বসন্তের আগমন গ্রামে বুঝা গ‍েলেও শহরে বুঝা খুবই কঠিন, অথচ গ্রামে ঋতুরাজ বসন্ত নিয়ে নেই কোন আলোচনা বা উৎসব। শহরে বসন্ত নিয়ে চলে উৎসব নানা আয়োজন। প্রকৃতির সৌন্দর্য‍্য ইট পাথরের শহরে কি পাবেন? গ্রামই প্রকৃতির আসল রুপ।

বর্তমান সমাজ ব‍্যবস্থায় শহরকে মেঘাসিটি এবং আমার গ্রাম আমার শহর উন্নয়নের নামে গাছ কেটে, পাহাড়-টিলা সাফ করে, জলাশয় ভরাটের মাধ্যমে পরিবেশ-প্রকৃতি ধ্বংস করে দিয়ে এখানে করা হয় প্রকৃতির বন্দনা। নানাবিধ আয়োজনে বরণ করে নেয়া হয় ঋতুরাজ বসন্তকে। পয়লা ফাল্গুনে নাগরিক তারুণ্য বসনে-ভূষণে বসন্তের রঙে সেজে সমস্বরে গেয়ে ওঠে, ‘আহা আজি এই বসন্তে কত ফুল ফুটে, কত পাখি গায়।’

কিন্তু নগরে ফুল কোথায়? দোকানে দোকানে ফুল আছে বটে, তরুণীদের খোঁপায়ও আছে কিছু। কিন্তু গাছ আর বাগান কই? নগর তো পুষ্পহীন। পাখিই বা গাইছে কই?

কোকিল দূরে থাক, কাক আর চড়ুইই তো দুর্লভ এখানে। নগরজুড়ে তো কেবল ইট আর সিমেন্ট। আকাশ ঢেকে দেয়া একেকটা অট্টালিকা। গায়ের রং বদলে দেয়া সোডিয়াম আলো।

শীতের আড়ষ্টতা ভেঙে জেগেছে প্রকৃতি। দখিনা বাতাসে ভাসছে পাখিদের গান। হৃদয়ের ব্যাকুলতা নিয়ে এসেছে বসন্ত। এতদিন ধরে যার অপেক্ষা, সেই বসন্ত আজ সমাগত। আজ পহেলা ফাগুন, ঋতুরাজ বসন্তের প্রথম দিন।

কোকিলের কুহুতান শোনা যাচ্ছিল কয়েক দিন আগ থেকেই। শুকনো পাতা ঝরে জন্ম নিয়েছে নতুন কচি পাতার। আজ সেই পত্রপল্লবে, ঘাসে ঘাসে, নদীর কিনারে, কুঞ্জ-বীথিকা আর পাহাড়ে অরণ্যে বসন্ত এসেছে নবযৌবনের ডাক দিয়ে। ছড়িয়ে দিয়েছে রঙের খেলা।

সোনালি রোদের ছোঁয়ায় পলাশগুলো আজ জেগে উঠবে। মৌমাছিদের গুঞ্জরণ, মাতাল হাওয়া ছুঁয়ে যাবে তনুমন। বাসন্তী রঙের গাঁদা ফুলের রঙেই আজ সাজবে তরুণ-তরুণীরা। তরুণীরা পরবে বাসন্তী রঙের শাড়ি। খোঁপায় গুঁজবে ফুল আর হাতে পরবে কাঁচের চুড়ি। তরুণরাও বাসন্তী রঙের পাঞ্জাবি বা ফতুয়া পরে নামবে বাংলার পথে ঘাটে। শুধু শহরেই নয়, বাংলার গ্রামীণ জনপদেও আজ ঝিরি ঝিরি বাতাসে ধরা দেবে বসন্ত।

এ বসন্ত শুধু শুধু উচ্ছ্বাসের রং ছড়ায় না, আমাদের ঐতিহাসিক রাষ্ট্রভাষা আন্দোলনে শহীদদের রক্তরঙিন স্মৃতির কথাও মনে করিয়ে দেয়। ১৯৫২ সালের ৮ ফাল্গুন বা একুশের পলাশরাঙা দিনের সঙ্গে তারুণ্যের সাহসী উচ্ছ্বাস আর বাঁধভাঙা আবেগের জোয়ারও যেন মিলেমিশে একাকার হয়ে আছে।

বাঙালির জীবনের সঙ্গে একাকার হয়ে আছে বসন্ত। বসন্তের বন্দনা আছে কবিতা, গান, নৃত্য আর চিত্রকলায়। বসন্তের প্রথম দিনকে বাঙালি পালন করে ‘পহেলা ফাল্গুন-বসন্ত উৎসব’ হিসেব।

উত্তর দিন

দয়া করে এখানে আপনার মন্তব্য লিখুন
দয়া করে এখানে আপনার নাম লিখুন