নবীগঞ্জে মানববন্ধনে বক্তারা ‘আলমগীরকে পরিকল্পিত হত্যা করে লাশ সড়কে ফেলে রাখা হয়’

0
20

নবীগঞ্জ প্রতিনিধি:: নবীগঞ্জ উপজেলার বড় ভাকৈর (পূর্ব) ইউনিয়নের ছোট ভাকৈর গ্রামের আলমগীর মিয়ার মৃত্যু সড়ক দূর্ঘটনায় হয়নি, তাকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করে লাশ সড়কে ফেলে রাখা হয়েছে।স্বজন ও স্থানীয় এলাকাবাসী এমন অভিযোগ তুলেছেন। বৃহস্পতিবার দুপুরে নবীগঞ্জ-ইনাতগঞ্জ আঞ্চলিক সড়কের কাজিরবাজার এলাকায় স্থানীয় এলাকাবাসী আয়োজিত মানববন্ধনে তারা এই অভিযোগ তুলেন।একই সাথে বক্তারা সুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমে অতিদ্রুত সময়ের মধ্যে জড়িতদের চিহ্নিত করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান।মানববন্ধনে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ বিভিন্ন শ্রেণী পেশার সহস্রাধিক জনসাধারণ অংশগ্রহণ করেন।মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন বড় ভাকৈর (পূর্ব) ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আশিক মিয়া, সাবেক চেয়ারম্যান আক্তার হোসেন ছোবা, বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সন্তান সংসদ সিলেট বিভাগের আহবায়ক মো. আব্দুল্লাহ মিয়া, অ্যাডভোকেট শাহিদ মিয়া, জাকির মিয়া, শহিদুল ইসলাম, এখলাছুর রহমান আজাদ, ইয়াকুব মিয়া, মুরাদ আহমদ, বিলাল আহমদসহ নিহত আলমগীরের মা রাবেয়া বেগম, স্ত্রী মুর্শেদা বেগম ও তিন কন্যা সন্তানসহ আরও অনেকেই।মানববন্ধনে নিহত আলমগীরের ৩ সন্তান ‘আমার বাবা কবরে খুনি কেন বাহিরে’ সম্বলিত প্লে কার্ড হাতে নিয়ে দাঁড়িয়ে পিতা হত্যার বিচার দাবি করেন। এসময় হৃদয়বিদারক দৃশ্যের অবতারণ হয়।উল্লেখ্য, গত (২০ জানুয়ারি) দিবাগত রাতে নবীগঞ্জ-ইনাতগঞ্জ সড়কের নিজ আগনা গ্রামের নিকটে আঞ্চলিক সড়কের ওপরে আলমগীর মিয়ার রক্তাক্ত মৃতদেহ উদ্ধার করে নবীগঞ্জ থানা পুলিশ। এঘটনার পর থেকে আলমগীর মিয়াকে পরিকল্পিত ভাবে হত্যা করা হয়েছে বলে দাবি করে আসছে তার পরিবার ও এলাকাবাসী। আলমগীর মিয়া বড় ভাকৈর (পূর্ব) ইউনিয়নের ছোট ভাকৈর গ্রামের মৃত আবুল কালাম আজাদের পুত্র।নবীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আজিজুর রহমান বলেন, ‘বিষয়টি গুরুত্বের সাথে দেখা হচ্ছে। আশা করি অচিরেই মূল রহস্য উদঘাটন হবে।’

 

উত্তর দিন

দয়া করে এখানে আপনার মন্তব্য লিখুন
দয়া করে এখানে আপনার নাম লিখুন