গোলাপগঞ্জ পৌরসভার নির্বাচনে ১নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী মোঃ জহির উদ্দিন সেলিমের সাক্ষাতকার

0
95

বিশেষ প্রতিনিধি:: সিলেট জেলার গোলাপগঞ্জ পৌরসভার নির্বাচনে চলছে কাউন্সিলর প্রার্থীদের প্রচারণা। এই জমজমাট প্রচারণার ফাঁকে প্রা্র্থীদের সাক্ষাৎকার গ্রহণ করছেন দৈনিক নিউজের গোলাপগঞ্জ প্রতিনিধি । আজকের সাক্ষাৎকার দিয়েছেন ১নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী মোঃ জহির উদ্দিন সেলিম।

দৈনিক নিউজ:  আপনাকে সালাম ও শুভেচ্ছা।

সেলিম: আপনাদেরকেও আমার ব্যক্তিগত এবং ১নং ওয়ার্ড বাসীর পক্ষ থেকে সালাম ও শুভেচ্ছা।

দৈনিক নিউজ: আপনার নাম?

সেলিমঃ আমার নামঃজহির উদ্দিন সেলিম। ১নং ওয়ার্ডের বর্তমান কাউন্সিলার।

দৈনিক নিউজ: আপনার নির্বাচনী প্রতীক কি?

সেলিমঃ আমার নির্বাচনী প্রতীক উটপাখি।

দৈনিক নিউজ: এটি তো আপনার ৪র্থ নির্বাচন।

সেলিমঃ হ্যাঁ, এটা আমার ৪র্থ নির্বাচন।

দৈনিক নিউজ: আপনি ৪র্থ বারের মতো কাউন্সিলর প্রার্থী হয়েছেন।এ সম্পর্কে আপনার অনুভূতি কেমন?

সেলিমঃ আমি আজ থেকে ২/৩ মাস আগে আমার ওয়ার্ডের সর্বস্তরের জনগনকে নিয়ে একটা মিটিং এ আমি উনাদেরকে বলেছিলাম আগামী নির্বাচনে আমি কি করব? উনারা সর্বসম্মতিক্রমে আমাকে আবারো নির্বাচন করার জন্য বলেন। এজন্য মহান আল্লাহর শুকরিয়া আদায় করছি। আমার ওয়ার্ডের সবার প্রতি আমি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। ইনশাআল্লাহ সবার দোয়া ও সহযোগিতা নিয়ে আবারোও বিজয়ী হবো।

দৈনিক নিউজ: আপনি দীর্ঘ ১৯ বছর ধরে ওয়ার্ডের সাথে রয়েছেন, আপনি কি কি উন্নয়ন করেছেন, একটু জানান।

সেলিমঃ ২০০২ সালে যখন প্রথম কাউন্সিলার নির্বাচিত হই, আমার এই ১নং ওয়ার্ডটি এখনকার মতো ছিল না।
প্রায় রাস্তাই কাঁচা ছিল।ড্রেনেজ ব্যবস্হা ছিল না। বর্তমানে ড্রেনেজ ব্যবস্থা ৯০% সম্পম্ন হয়েছে। রাস্তাঘাটও পাকাকরণ এর কাজ ৯০% সম্পন্ন হয়েছে। শুধুমাত্র ব্যাক্তিগত বাড়ীর রাস্তার পাকাকরণ এর অনেকটা বাকী রয়েছে। তারপরও ব্যাক্তিগত রাস্তা অনেকটা সম্পন্ন করেছি।
আমার ওয়ার্ডের প্রায় পুরোটাই সড়ক বাতির আওতায় চলে এসেছে। ৭/৮ মাস আগে আধুনিক সড়ক বাতির আওতায় নিয়ে আসা হয়েছে। পুরনো যেগুলো সড়ক বাতি রয়েছে, সেগুলোও আধুনিক মানে সৌরবিদ্যুত এর আওতায় নিয়ে আসা হবে।এ বিষয়ে ৩ কোটি টাকার একটি প্রজেক্টও রয়েছে।
আমার ওয়ার্ডের বয়স্ক ভাতা (পুরুষ) ৯৫℅ সম্পন্ন,বয়স্ক ভাতা(নারী) ১০০% সম্পন্ন, বিধবা ভাতা ৮০% সম্পন্ন, প্রতিবন্ধী ভাতা ১০০% সম্পন্ন করা হয়েছে। ইনশাআল্লাহ যদি এবার নির্বাচিত হই,তাহলে সবগুলো ভাতাই ১০০% সম্পন্ন হয়ে যাবে।

দৈনিক নিউজ: আপনার দীর্ঘ ১৯ বছরের পথ পরিক্রমায় জনগনকে সেবা দিতে গিয়ে আপনি কি কখন অস্বস্থিতে পড়েছেন বা আপনার কোন মজাদার ঘটনা থাকলে আমাদের জানান?

সেলিমঃ মজাদার ঘটনা হলো আমি যখন প্রথম নির্বাচিত হই, তখন সবেমাত্র আমার বয়স ২৫ বছর পূর্ন হয়েছিল।গোলাপগঞ্জ পৌরসভার প্রথম নির্বাচন হয়েছিল ২০০২ সালে। তখন এলাকার সর্বস্তরের জনগণ তথা মুরব্বিরা আমার অবিভাবক যেমন- আব্বা,চাচা সবাইকে বলছিল যাতে আমি নির্বাচনে অংশগ্রহণ করি এবং আমার পরিবার যাতে মত প্রদান করেন।
ওয়ার্ডের সবাই আমাকে ভোটে দাড় করিয়েছিল এবং পাশ করিয়ে এনেছিল। প্রথম থেকে এখন পর্যন্ত পৌরসভা থেকে সবধরনের সুবিধা আমার ওয়ার্ডবাসীর জন্য আমি নিয়ে আসতেছি। আমার ওয়ার্ডবাসী এখন পর্যন্ত আমার সাথে আছেন এবং ভবিষ্যৎতে থাকবেন ইনশাআল্লাহ।

দৈনিক নিউজ: আপনার ওয়ার্ডবাসীর জন্য ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা কি?

সেলিমঃ আমার ওয়ার্ডবাসীর জন্য অবশ‍্যই পরি
কল্পনা রয়েছে। আমার ওয়ার্ডের অবকাঠামো সুবিধা এবং নাগরিক সুবিধা প্রায় শেষ পর্যায়ে। যদি নির্বাচিত হই, ইনশাল্লাহ আগামী ১ বছরের মধ্যে সবগুলো সুবিধাই ১০০% হয়ে যাবে। আমার এলাকার গরীব কিছু লোকের জন্য পৌরসভা থেকে হোক আর সরকার থেকে হোক বা যেকোনোভাবে হোক বা ক্ষুদ্র ঋণের মাধ্যমে হোক,সেলাই প্রশিক্ষণ এর ব্যবস্হা করব এবং সেলাই মেশিন বিতরণ করে ওদেরকে অর্থনৈতিক সাপোর্ট দিব।আবার অনেককে হাঁস, মুরগী, গরু, ছাগল বিতরণ করে ওদেরকে অর্থনৈতিক সাপোর্ট দিব।

দৈনিক নিউজ: আপনাকে  ধন্যবাদ।

সেলিমঃ আপনাকেও ধন্যবাদ।

উত্তর দিন

দয়া করে এখানে আপনার মন্তব্য লিখুন
দয়া করে এখানে আপনার নাম লিখুন